সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৪৩ পূর্বাহ্ন

প্রতিবন্ধীতাকে জয় করে  সাংবাদিকতায় নেত্রকোনার  আনোয়ার

মো: দিলওয়ার খান
  • আপডেট : মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ১৩৮ পঠিত

দিলওয়ার খান  : সাংবাদিক আনোয়ার হোসেন চৌধুরী। বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদকারী কলম যোদ্ধা। ১৯৮৬ সালে সাপ্তাহিক বিদ্রোহী বার্তায় “এই লাশ রাখবো কোথায়? ” শিরোনামে বঙ্গবন্ধুর রক্তাক্ত ছবি দিয়ে সংবাদ প্রচারের দায়ে গ্রেফতার হন। চোখ বেঁধে তাঁকে নিয়ে যায় কারাগারে। দেয়া হয় রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা। এক বছর কারাভোগের পর ছাড়া পান তিনি।

এভাবেই শুরু হয় তাঁর সাংবাদিকতার প্রথম পথচলা। আনোয়ার হোসেন চৌধুরী’র জন্ম ১৯৬৭ সালের ২রা জানুয়ারি, নেত্রকোণা জেলার ভাটিবাংলার রাজধানী খ্যাত মোহনগঞ্জ উপজেলার ৭ নং গাগলাজুর ইউনিয়নের বড়ান্তর গ্রামের চৌধুরী বাড়িতে। পিতা- মরহুম আব্দুল জব্বার চৌধুরী ও মাতা- মরহুমা আনোয়ারা বেগমের প্রথম সন্তান আনোয়ার । তিনি ১৯৮৬ সালে আই.কম পাশ করেই প্রথম সাংবাদিকতা শুরু করেন সাপ্তাহিক বিদ্রোহী বার্তা পত্রিকার মাধ্যমে। পরবর্তীতে দৈনিক সমাচার, জননেত্র, বাংলার দর্পণসহ বর্তমানে ডেইলি সান পত্রিকায় সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন।পারিবারিক জীবনে আনোয়ার হোসেন দুই সন্তানের জনক। বড় ছেলে নেত্রকোণার বিখ্যাত একজন গায়ক সাদমান পাপ্পু।

তিনি  ল’ কলেজে আইন বিষয় নিয়ে অধ্যয়নরত। আর ছোট ছেলে তরুণ ক্রিকেটার পাপন, পড়াশোনা করছে নেত্রকোণা সরকারি কলেজে। আর স্ত্রী শিমুল চৌধুরী বেবী নেত্রকোণা পৌরসভার নির্বাচিত কাউন্সিলর।দীর্ঘ ৩৬ বছরের সাংবাদিকতা পেশায় তিনি জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন।  কারাগার থেকে বের হয়ে তিনি আইকম পাশের খবর শুনতে পান।পরে মামলা হামলার টানাপোড়েনে মাইন্ড স্ট্রোক ও এক্সিডেন করে সারাজীবনের জন্য পুঙ্গু হয়ে যান।শুরু হয় স্ট্রেচারে ভর করে জীবনের ভার নিয়ে পথচলা। কিন্তু দমে যাননি তিনি। শারীরিক প্রতিবন্ধকতায় কাবু করতে পারেনি অদম্য এই কলম যোদ্ধাকে। দুই হাতের বগলদাবায় দুটো স্ট্রেচার নিয়ে শহর থেকে গ্রামে খবরের নানান কাজে ছুটে চলেন অবিরাম। অফিস থেকে অফিসে, সকল উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড, সরকারি বেসরকারি সভা-সমাবেশে উপস্থিত হন আশির দশকের এই প্রবীণ সাংবাদিক।

নেত্রকোণা জেলা প্রেসক্লাবের সাংস্কৃতিক সম্পাদক হিসেবে তিনি বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন।তিনি বারবার বিভিন্ন পদে নিবারৃচিত হয়ে দায়িতৃ পালন করেন।  ক্লাবের নিয়মিত একজন সদস্য হিসেবে  প্রেসক্লাবে  বসা,  নিমা্র্ন কাজে সার্বিক তদারকি  করা খোঁজ-খবর নেওয়া প্রতিদিনের কর্মকাণ্ড তাঁর। যে কারো সাথে দেখা হলেই এই সাহসী বীর একটি নির্মল হাসি দেন। এটা যেন তাঁর আজন্মকালের  অভ্যাস।

 

শেয়ার করুন:

এ জাতীয় আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এক ক্লিকে বিভাগের খবর

© All rights reserved © 2021 dainikjananetra
কারিগরি সহযোগিতায় পূর্বকন্ঠ আইটি